বেড়ায় চারদিন পরেও নিখোঁজ মাদ্রাসা ছাত্রী উদ্ধার হয়নি; পরিবারের সন্দেহ তাকে অপহরন করেছে উক্ত মাদ্রাসার শিক্ষিকা শাওন

ডেইলি ভিশন টুয়েন্টিফোর অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশিত: ৬:০৮ অপরাহ্ণ, মে ১৭, ২০২১

বেড়া প্রতিনিধি
পাবনা বেড়া উপজেলার হাটুরিয়া থেকে মাদ্রসা পড়–য়া এক ছাত্রী চারদিন ধরে নিখোঁজ রয়েছে। বাড়ি থেকে সন্ধা পৌনে সাতটার সময় থেকে তাকে খুজে পাওয়া যায়নি। নিখোঁজের দুইদিন পরে রবিবার (১৬মে) বেড়া মডেল থানায় একটি সাধারন ডায়রি করেছেন নিখোঁজ হওয়া মেয়েটির মা মরিয়ম খাতুন।
পরিবার ও থানায় অভিযোগ থেকে জানা যায়, বগুড়া জেলার শেরপুর থানার আমিনপুর (পুরাতন কলোনী) পাড়ার মোহামম্মদ আলীর মেয়ে মোছাঃ ফাতেমাতুজ জোহরা (১৪) সাঁথিয়া উপজেলার ইদ্রাকপুর মহিলা কওমী মাদ্রাসায় (আবাসিক) পড়াশুনা করত। করোনার কারনে মাদ্রাসা বন্ধ থাকায় জোহরা ও তার শিক্ষিকা শাওন উভয় তার নানা বাড়ি অবস্থান করে। গত একমাস আবস্থানের পর শিক্ষিকা শাওন ওই ছাত্রীকে লুকিয়ে একটি মোবাইল ফোন দেয়। এদিকে ঈদ উৎযাপন করার জন্য গত ১৩ মে ফাতেমাতুজ জোহরা মা মরিয়ম খাতুন মেয়ের খাছে আসে। ঈদের দিন ১৪ মে সন্ধায় মাগরিবের নামাজ পরে জোহরা বাড়ি থেকে বেড় হয়ে। এরপর সে বাড়িতে ফিরে আসেনি। জোহরাকে না দেখে বাড়ির লোকজন অনেক খোজাখুজি করে তাকে পায়নি। পরে মা মরিয়ম খাতুন বাদি হয়ে গত ১৬মে বেড়া থানায় একটি সাধারন ডায়রি করেন।
পরিবারের লোকজন খোঁজ খবর নিয়ে জানতে পারে ওই ছাত্রীকে বিভিন্ন প্রলোভন দেখিয়ে উক্ত মাদ্রাসার শিক্ষিকা শাওন তাকে অপহরন করেছে। শিক্ষিকার শাওনের বাড়ি নরশিংদী মনহরদী লেকের বাজার। ছাত্রীর পরিবারের লোকজন কৌশলে শাওনকে ডেকে বাড়িতে নিয়ে আসে। তাকে জিঞ্জাাসাবাদ করলে সে জোহরার খোজ জানে বলে স্বীকার করে। এসময় বেড়া থানা পুলিশকে খবর দিলে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছে শিক্ষিকা শাওন ও পরিবারের তিন সদস্যকে থানায় নিয়ে আসে। থানায় নিখোজ মেয়ের ভর্তি ফরম চেয়ে পরিবারের লোকজনকে বাড়ি চলে যেতে বলে। পরে শাওনকে চিকিৎসা দেয়ার কথা বলে বেড়া থানা পুলিশ তাকে বেড়া স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গতকাল ১৭মে সোমবার ছেরে দেয়। পরিবারের সন্দেহ ওই শিক্ষিকা তার মেয়েকে প্রলোভন দেখিয়ে নিয়ে কোথায়ও রেখেছে।
এব্যাপারে নিখোঁজ ছাত্রীর মা- মরিয়ম খাতুন বলেন, আমার মেয়েকে শিক্ষিকা শাওন প্রলোভন দেখিয়ে অপহরন করেছে। কৌশলে তাকে ডেকে এনে পুলিশের কাছে সোর্পদ করলেও পুলিশ কেন তাকে ছেরে দিল। । গত চারদিন হয়ে গেল আমরা মেয়ের কোন সন্ধান পাচ্ছিনা। নিখোঁজ হওয়া ছাত্রীর পরিবারের লোকজন পুলিশের ভৃমিকা নিয়ে অসুন্তুষ্ঠ প্রকাশ করেন। তাদের দাবী প্রশাসন যেন সুষ্ঠ তদন্তের মাধ্যমে তাদের মেয়েকে তারাতারি উদ্ধার করে ফিরিয়ে আনে। সেই সাথে দোষী ব্যাক্তিদেরকে আইনের আওতায় এনে শাস্তির দাবী জানান। তদন্ত কর্মকর্তা এস আই মেহেদী জানান, দ্রুত তাকে উদ্ধার করার চেষ্ঠা চলছে