চলনবিলের গ্রামে গ্রামে চলছে ধানকাটা উৎসব

ডেইলি ভিশন টুয়েন্টিফোর অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশিত: ৯:২১ অপরাহ্ণ, মে ১৬, ২০২১

চাটমোহর প্রতিনিধি
করোনায় যখন দেশে চলছে চরম অস্থিরতা,তখন গ্রামে গ্রামে চলছে অন্য রকম উৎসব। কৃষকের শ্রমে-ঘামে ফলানো সোনার ফনল ধান গোলায় তোলার উৎসব। রাত-দিন চলছে ধান কাটা,মাড়াই,শুকানো ও গোলায় তোলার কর্মযজ্ঞ। দম ফেলার সময় নেই কিষাণ-কিষাণী ও কৃষি শ্রমিকের। প্রচন্ড তাপদাহে যে কোন সময় ঝড়-বৃষ্টি হতে পারে এমন আশংকায় চিন্তি কৃষক।
পাবনার চাটমোহরসহ চলনবিল অঞ্চলে এমন অবস্থা বিরাজ করছে। ধান তোলার উৎসব চলছে চলনবিল অঞ্চলের গ্রামে গ্রামে। এ অঞ্চলে এবার বোরো ধানের বাম্পার ফলন হয়েছে। হাট-বাজারে ধানের দামও বেশী। কৃষকও খুশী। সম্প্রতি হিটশকে কিছু ধানের ক্ষতি হলেও ভালো ফলনে তা পুষিয়ে যাবে বলে জানান বোরো চাষীরা।
হাইব্রিডসহ বিভিন্ন জাতের ধানের আবাদ হয়েছে চলনবিল অঞ্চলে। ফলনও আশানুরুপ হয়েছে বলে জানালের কৃষক ও কৃষি বিভাগের কর্মকর্তারা।
চাটমোহর উপজেলার হান্ডিয়ালের কৃষক জাকির হোসেন বললেন,আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় ধান কাটা ও মাড়াইয়ের তেমন সমস্যা হচ্ছেনা। যে কোন সময় ঝড়-বৃষ্টি হতে পারে। আগাম বন্যও হানা দিতে পারে। গত বছর আগাম বন্যার ফলে চাষীরা ক্ষতিগ্রস্থ হয়।
পাশর্^ডাঙ্গার কৃষক শামীম হোসেন জানান,সবাই এখর বোরো ধান কাটা ও মাড়াইয়ে ব্যস্ত। নাওয়া-খাওয়া ভুলে ধান তুলছে ঘরে। এলাকার ডিকশি বিলসহ অন্যান্য জমির ধান কাটা অর্ধেক হয়েছে। এক সপ্তাহের মধ্যে ধান কাটা শেষ হতে পারে। দিন-রাত চলছে ধান কাটা ও মাড়াইয়ের কাজ।
চাটমোহর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ এ এ মাসুমবিল্লাহ জানান,চলতি মৌসুমে এ উপজেলায় ৯ হাজার ৫ শত হেক্টর জমিতে বোরো ধানের আবাদ হয়েছে। এরমধ্যে ১২ শত হেক্টর জমিতে হাইব্রিড ধানের আবাদ করা হয়। ধােেনর ফলনও ভালো। আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে কৃষক নির্বিঘেœ ধান কেটে ঘরে তুলতে পারবেন।