চলনবিলাঞ্চলে প্রচন্ড তাপদাহে কাহিল জনজীবন


চাটমোহর প্রতিনিধি
গরমে হাঁসফাঁস জনজীবন। দিন না গড়াতেই চাটমোহরসহ চলনবিল অঞ্চলে তাপমাত্রার পারদ ৪০ ডিগ্রী সেলসিয়াসে পোঁছেছে। পবিত্র রমজান মাসে গ্রীষ্মের প্রচন্ড তাপদাহে জনজীবন কাহিল হয়ে পগেছে। চলমান তাপদাহে পুড়ছে প্রকৃতি। ূর্যের প্রখর তাপ আর আগুন ঝরা বাতাসে হাঁসফাঁস করছে প্রাণিকূল। বৃষ্টির দেখা নেই। তীব্র গরম থেকে মুক্তির কোন লক্ষণ দেখা যাচ্ছেনা। কাঠফাটা গরমে সবার যেন নাভিশ^াস। বিশেষ করে শহর এলাকার পরিবেশ তপ্ত হয়ে পড়েছে। ঘরে-বাইরে কোথাও স্বস্তি নেই। হিটস্ট্রোক ও ডায়রিয়াসহ গরমজনিত রোগের প্রাদুর্ভাব দেখা দিয়েছে। ত্রাতা হয়ে কখন বৃষ্টি নামবে,সেই অপেক্ষায় প্রহর গুনছে চলনবিল পাড়ের মানুষ।
গ্রীষ্মের শুরু থেকেই চলনবিল অঞ্চলে বৃষ্টি নেই। করোনাকালীন লকডাউন চলছে। জরুরী প্রয়োজন ছাড়া এমনিতেই কেউ বাইরে বের হচ্ছেনা। তার ওপর প্রচন্ড তাপদাহ আর গরমে মানুষ ঘরবন্দি হয়ে পড়েছে। বেলা বাড়ার সাথে সাথে শহরের রাস্তাগুলো জনশুন্য হয়ে পড়ছে। দিনমজুর ও শ্রমিক শ্রেণীর মানুষ প্রচন্ড গরমেও বাইরে বের হচ্ছে রোজগারের আশায়। চাটমোহরের অটোভ্যান চালক বজলুর রহমান বললেন,‘সংসারের খাবারের জন্যি বের হই। কাম না করলি,খাব কী ? গরম কী আর রোদ কী,কামাই না হলি অনাহারে থাকতি হবি। কেউ তো কোন সাহায্য দিচ্ছেনা।’
চাটমোহর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক ডাঃ মতিউর রহমান বললেন,এই গরমে শিশুদের প্রচুর পরিমাণ পানি পান করাতে হবে। ডায়রিয়া হলে দ্রুত ডাক্তারের কাছে বা হাসপাতালে নিয়ে আসতে হবে। করোনাকালীন এই সময়ে সবাইকে সাবধানে থাকতে হবে।


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *