সুজানগরে কঠোর লকডাউন নেই; সবই যেন স্বাভাবিক!

ডেইলি ভিশন টুয়েন্টিফোর অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশিত: ১০:০৫ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ১৫, ২০২১

এম,এ আলিম রিপন
করোনাভাইরাসের দ্বিতীয় ঢেউ মোকাবেলা ও সংক্রমণ রোধে ১৩টি নির্দেশনা দিয়ে দেশজুড়ে গত বুধবার থেকে ৮ দিনের কঠোর লকডাউন ঘোষণা করে প্রজ্ঞাপন জারি করে সরকার। কিন্তু সরকারের সেই লকডাউনের ঘোষণা উপেক্ষা করে সুজানগরের সড়কে বের হয়েছে মানুষ। সেই সঙ্গে সড়কে আধিপত্য করছে ব্যক্তিগত গাড়ি, ট্রাক,সিএনজি, করিমন,লছিমন ব্যাটারী চালিত বোরাক, অটোভ্যান ও মোটরসাইকেল। বৃহস্পতিবার(১৫এপ্রিল) দুপুর ১২টার দিকে সুজানগর পৌর শহর ঘুরে দেখা যায়,বাজারের প্রধান সড়কে বাস না থাকলেও অন্যান্য যান চলাচল ছিল অন্যান্য দিনের মতোই স্বাভাবিক। ঔষধের দোকান ও দিনে ৬ ঘন্টার জন্য কাঁচাবাজার খোলা রাখা ছাড়া লকডাউনে সব ধরণের মার্কেট ও দোকানপাট বন্ধ রাখার নির্দেশনা রয়েছে এবার। কিন্তু সে নির্দেশনা উপেক্ষা করে বাজারের প্রায় সকল ধরণের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানই খোলা রেখেছে ব্যবসায়ীরা। সামাজিক দূরত্ব না মেনে শত শত মানুষ কেনা-কাটায় ব্যস্ত সময় পার করছেন। মাস্কও দেখা যায়নি অনেকের মুখে। সুজানগর উপজেলা ঔষধ ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি একিউএম শামসুজ্জোহা বুলবুল বলেন,সরকার কঠোর লকডাউন ঘোষণার পরও বাজারের প্রায় প্রতিটি দোকান খোলা থাকছে।তাই লকডাউন কার্যকর করতে সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের পক্ষ থেকে নজরদারি বাড়ানো উচিত। সুজানগর প্রেসক্লাবের সভাপতি শাহজাহান আলী বলেন, বাজারে অসংখ্য মানুষ ও যানবাহন ভিড় করছেন। এটা রোধ করা না গেলে উপজেলায় ভয়াবহ আকারে করোনাভাইরাস সংক্রমিত হতে পারে। থানার (ওসি) বদরুদ্দোজা বলেন, কঠোর লকডাউন কার্যকর করতে মাঠে থানা পুলিশের সদস্যরা কাজ করছেন। উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ হাবিবুর রহমান জানান, গত কয়েকদিনে ২৬৯ জনের নমুনা সংগ্রহ করে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ল্যাবে পাঠানো হয়েছে। এর মধ্যে এখন পর্যন্ত ১২ জনের রিপোর্ট পজিটিভ পাওয়া গেছে। উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো.রওশন আলী জানান, উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে মাইকিং করা সহ ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে কয়েক দফা জরিমানা করা হয়েছে। এছাড়া সরকারের কঠোর লকডাউনের নির্দেশনা বাস্তবায়নে প্রয়োজনে আরো কঠোর পদক্ষেপ গ্রহন করা হবে বলেও জানান তিনি।