শেখ হাসিনাকে ২১ বার হত্যাচেষ্টা করা হয়েছে: শিক্ষামন্ত্রী

ডেইলি ভিশন টুয়েন্টিফোর অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশিত: ৬:৫৮ অপরাহ্ণ, আগস্ট ২৬, ২০২২

‘বঙ্গবন্ধুর রক্তের উত্তরাধিকার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে গত ৪১ বছরে অন্তত ২১ বার হত্যার চেষ্টা করা হয়েছে। একাত্তরের ঘাতক, পঁচাত্তরের ঘাতক, ২০০৪ এর ২১ আগস্টের ঘাতক, ২০১৩-১৪ এর অগ্নি সন্ত্রাসের ঘাতকের দল এক ও অভিন্ন। আজও তারা আস্ফালন করে আরেকটি ১৫ আগস্ট ঘটানোর জন্য। এজন্য সবাইকে সজাগ ও সতর্ক থাকতে হবে। নিজেদের মধ্যে ঐক্য বজায় রাখতে হবে। যেন কোনোভাবেই তারা সফল হতে না পারেন।’

শুক্রবার (২৬ আগস্ট) দুপুরে পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (পাবিপ্রবি) স্বাধীনতা চত্বরে আয়োজিত ‘বঙ্গবন্ধু, বাংলাদেশ জাতি রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার মহানায়ক’ শীর্ষক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি একথা বলেছেন।

Dailyvision24.com

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ আজ দুই ভাগে বিভক্ত আওয়ামী লীগ ও আওয়ামী লীগ বিরোধী। একদিকে মুক্তিযুদ্ধের সমমনা ও উল্টো দিকে যাদের কোনো আদর্শ নেই। অগ্নিসন্ত্রাস, এতিমের অর্থ আত্মসাৎ, রাজনৈতিক প্রতিপকে গ্রেনেড দিয়ে উড়িয়ে দেওয়া এগুলো কোনো আদর্শ হতে পারে না।

দেশের শিক্ষা ব্যবস্থায় ব্যাপক পরিবর্তন নিয়ে আসা হচ্ছে জানিয়ে শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি আরও বলেন, আমরা শিক্ষা ব্যবস্থায় ব্যাপক পরিবর্তন আনছি। শিক্ষাকে আনন্দময় করার চেষ্টা করছি। শিক্ষা যেন মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় হয়, সেই চেষ্টা করছি। এ ছাড়া শিক্ষা যেন বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিবান্ধব হয়, সেই চেষ্টাও করছি। শিক্ষা ব্যবস্থার এই পরিবর্তনে শিক্ষকদের সবচেয়ে বড় ভূমিকা রয়েছে। এ ছাড়া অভিভাবকসহ আমাদের সমাজের সবার ভূমিকা রয়েছে।

শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবকে জানতে হলে তাকে অনুধাবন করতে হবে, হৃদয়ে ধারণ করতে হবে। তিনি যেমন বাংলাদেশের স্বাধীনতার আকাংখাকে, মানুষের স্বপ্নকে নিজের বুকে ধারণ করেছিলেন, সেভাবে সেই স্বপ্ন, আকাংখা ও সাহসকে আপনার মনে ধারণ করতে হবে। তাহলেই আপনারা তার যোগ্য কর্মী ও নেতা হয়ে উঠতে পারবেন।

দীপু মনি বলেন, এই বাংলাদেশ মুজিবের বাংলাদেশ, এই বাঙালি মুজিবের বাঙালি। কারণ, পৃথিবীর যেখানেই বাঙালিরা গেছেন, সেখানে কেউ বাংলাদেশকে চেনেনি, কিন্তু যখনই বলা হয়েছে শেখ মুজিবের দেশ, তখনই চিনেছে। সে জন্যই তিনি বাংলাদেশ জাতি-রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার মহানায়ক।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. হাফিজা খাতুন। বক্তব্য দেন, পাবনা-৪ আসনের সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব নুরুজ্জামান বিশ্বাস, পাবনা-২ আসনের সংসদ সদস্য আহমেদ ফিরোজ কবির, বিশ্ববিদ্যলয়ের রিজেন্ট বোর্ডের সদস্য ও সিরাজগঞ্জ-৬ আসনের সংসদ সদস্য মেরিনা জাহান কবিতা, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মশিউর রহমান, অ্যাটকোর সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা অঞ্জন চৌধুরী পিন্টু, বাংলাদেশ সরকারি কমিশনের সদস্য অধ্যাপক ড. নূরজাহান বেগম ও বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. এসএম মোস্তফা কামাল খান।