ঢালারচর এক্সপ্রেসের বগি কমিয়ে দেওয়ায় যাত্রীরা চরম দূর্ভোগে

ডেইলি ভিশন টুয়েন্টিফোর অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশিত: ৪:৫০ অপরাহ্ণ, জুলাই ২০, ২০২২

পাকশী বিভাগীয় রেলের পাবনার বেড়া থেকে রাজশাহীগামী ঢালারচর এক্সপ্রেস ট্রেনের বগি সংকটের কারণে যাত্রীদের চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। ট্রেনে সিট না পেয়ে যাত্রীরা দাঁড়িয়ে যাতায়াত করছেন। এতে নারী ও শিশুরা বেশি দুর্ভোগের শিকার হচ্ছেন। এই ট্রেনের একমাত্র শোভন চেয়ারের বগিটি গত মঙ্গলবার (১৯ জুলাই) মেরামতের জন্য সৈয়দপুর কারখানায় পাঠানো হয়েছে বলে জানা গেছে। কোন বিকল্প ব্যবস্থা না করেই বগিটি মেরামতের জন্য পাঠানোর ফলে পাবনার একমাত্র এই ট্রেনের যাত্রীদের দুর্ভোগের সৃষ্টি হয়েছে।

বগি কমে যাওয়ায় যাত্রীদের দুর্ভোগ বাড়ার পাশাপাশি ট্রেনের টিকেট পরিদর্শককে (টিটিই) বিড়ম্বনার শিকার হতে হচ্ছে। প্রতিটি বগিতে ধারণ মতার চেয়ে দ্বিগুণ যাত্রী যাতায়াত করছে। অতিরিক্ত ভীড়ের কারণে টিটিইরা প্রতিটি যাত্রীর টিকিট চেক করতে পারছেন না।

রেল সূত্রে জানা যায়, রাজশাহী থেকে ঢালারচর রুটের ট্রেনটি ৬টি বগি নিয়ে চলাচল করে। ট্রেনে ৫৩০টি আসন থাকলেও প্রতিদিন গড়ে এই ট্রেনে প্রায় আট শতাধিক যাত্রী যাতায়াত করেন। দাঁড়িয়েই যাত্রীরা চলাচল করে। এরমধ্যে শোভন চেয়ারের ‘খ’ বগিতে ছিল ৯৮টি আসন। বিকল্প ব্যবস্থা না করে শোভন চেয়ারের বগিটি মেরামতের জন্য কারখানায় পাঠানো হয়েছে।

বুধবার (২০ জুলাই) ঢালারচর এক্সপ্রেস ট্রেনের যাত্রী মুনসেদ প্রামানিক জানান, ট্রেনে পাবনা থেকে বিপুল যাত্রী ওঠে। সব বগিতেই যাত্রী ঠাসা। পাবনাবাসীর দাবি ছিল, এই ট্রেনের বগি বাড়ানোর-উল্টো বগি কমিয়ে দেওয়ায় দুর্ভোগের সৃষ্টি হয়েছে।

জনৈক টিকিট পরিদর্শক (টিটিই) নাম প্রকাশ না করে বলেন, ঢালারচর এক্সপ্রেসে বগি সংকটের কারণে চরম দুর্ভোগ সৃষ্টি হয়েছে। যাত্রীরা সবাই টিকিট কেটে যাতায়াত করেন। বিনা টিকিটের যাত্রী এ রুটে নেই বললেই চলে।

পাকশী বিভাগীয় যান্ত্রিক প্রকৌশলী (ক্যারেজ ও ওয়াগন) মুনতাজুল ইসলাম বলেন, বগিটি মেরামতের জন্য সৈয়দপুর কারখানায় পাঠানো হয়েছে। বিকল্প আর কোনো শোভন চেয়ারের বগি না থাকায় নতুন বগি সংযুক্ত করা সম্ভব হয়নি। একটি বগি মেরামতে স্বাভাবিকভাবে এক থেকে দেড় মাস সময় প্রয়োজন হয়। এই ট্রেনে বগি সংকটের বিষয়টি আমাদের জানা রয়েছে।

পাকশী বিভাগীয় পরিবহন কর্মকর্তা আনোয়ার হোসেন বলেন, বগি মেরামত জরুরি হওয়ায় এটি সৈয়দপুর কারখানায় পাঠানো হয়েছে। বিকল্প ব্যবস্থা না থাকায় নতুন বগি সংযুক্ত করা সম্ভব হয়নি।