দেশে হিন্দু সম্প্রদায়ের উপর নির্যাতন ও মন্দির ভাংচুরের প্রতিবাদে ঈশ্বরদীতে বিক্ষোভ মানববন্ধন

ডেইলি ভিশন টুয়েন্টিফোর অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশিত: ৩:২২ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ২৩, ২০২১

দূর্গাপূজায় প্রতিমা ও মন্দির ভাংচুর, হিন্দু সম্প্রদায়ের বাড়ি-ঘরে অগ্নিসংযোগ-হামলা, লুটপাঠ, হত্যা ও নারী ধর্ষনের প্রতিবাদের শনিবার ঈশ্বরদীতে মানবন্ধন, বিক্ষোভ ও গণঅনশন কর্মসূচি পালিত হয়েছে। বাংলাদেশ হিন্দু, বৌদ্ধ, খৃষ্টান ঐক্য পরিষদ ও পূজা উদযাপন পরিষদ যৌথভাবে শহরের মূল কেন্দ্রে এই কর্মর্সচির আয়োজন করে। বাংলাদেশ হিন্দু মহাজোট এই কর্মসূচির সাথে একাত্মতা প্রকাশ করে।

সভায় সারা দেশে হিন্দু সম্প্রদায়ের উপর নির্যাতন ও মন্দির ভাংচুরের সাথে জড়িতেদের বিশেষ ট্রাইবুনাল গঠন করে দ্রুত বিচার ও দোষীদের শাস্তি, বাহাত্তরের সংবিধান পুন:প্রতিষ্ঠার দাবী এবং অসাম্প্রদাযিক চেতনার মুসলিম সম্প্রদায়কে হিন্দু সম্প্রদায়ের পাশে দাঁড়ানোর আহব্বান জানানো হয়।

Dailyvision24.com

সভাপতিত্ব করেন ঐক্য পরিষদের সভাপতি সন্তোষ সরকার। সঞ্চালন করেন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক সাংবাদিক গোপাল অধিকারী।

বক্তব্য রাখেন, প্রেসক্লাবের সভাপতি, মৌবাড়িয়া-ঠাকুরবাড়ি মন্দির কমিটির সাধারণ সম্পাদক স্বপন কুমার কুন্ডু, পূজা উদযাপন পরিষদের উপজেলা সভাপতি সুনীল চক্রবর্তী, উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সুমন দাস, হিন্দু মহাজোটের উপজেলা সাধারণ সম্পাদক দেবদুলাল রায়, ঐক্য পরিষদের উপজেলা কমিটির সহ-সভাপতি বাবু পান্ডে, পূজা উদযাপন পরিষদের উপজেলা সম্পাদক গণেশ সরকার, পৌর কমিটির সম্পাদক তাপস সাহা, উৎপল সরকার, যুগ্ম সম্পাদক ডা. সুজয় কুন্ডু তাপস, পৌর শাখার সভাপতি পার্থ প্রতীম দাস, তপতী লাহিড়ী, দীপু রায়, পাকশীর হরিজন কলৌনির দুলাল কুমারসহ বিভিন্ন সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।

একাত্বতা প্রকাশ করে আরো বক্তব্য রাখেন বীরমুক্তিযোদ্ধা সিরাজ উদ্দীন বিশ্বাস, সাবেক ভিপি মুরাদ মালিথা, আসাদুর রহমান বিরু।

এসময় নেতাকর্মীরা সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের সার্বিক নিরাপত্তার লক্ষ্যে ‘সংখ্যালঘু সুরক্ষা আইন’ পাস ও সংখ্যালঘু মন্ত্রণালয় গঠন করাসহ পাঁচ দফা দাবি জানানো হয়। হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের ডাকে কর্মসূচিতে বীরমুক্তিযোদ্ধা ফজলুর রহমান ফান্টু, খেলাঘর কেন্দ্রিয় কমিটির সদস্য হাসানুজ্জামান, হিন্দু মহাজোট উপজেলা কমিটির সভাপতি আশুতোষ পাল, হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদ উপজেলা কমিটির সহ-সভাপতি প্রদীপ কুমার রাম, পৌর সম্পাদক সুকুমার চক্রবর্তী, পূজা উদযাপন পরিষদ পৌর কমিটির সভাপতি প্রশান্ত কুন্ডু হারু, শিবু কর্মকার, মহাজোট পৌর কমিটির সভাপতি উত্তম সাহা, সম্পাদক সুমন সাহা, রাজেশ সরাফ, হিমাংশু সরকার, দীপঙ্কর কুমার, সুবাস সরকার ,অপূর্ব রায়, সন্তোষ দাস, সিজান কুমারসহ বেশ কয়েকটি হিন্দু সংগঠনের চার শতাধিক নেতাকর্মী অংশগ্রহণ করেন।