ঈশ্বরদীতে বৃষ্টির পানিতে আমন ধানের চারা রোপণে ব্যস্ত কৃষক

ডেইলি ভিশন টুয়েন্টিফোর অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশিত: ১:২৪ অপরাহ্ণ, জুলাই ২৯, ২০২১

শ্রাবনের শুরু থেকেই বৃষ্টির পানি পেয়ে কৃষকরা আমনের চারা রোপণে ব্যাস্ত সময় অতিক্রম করছে। এবারে আষাঢ় মাস জুড়ে বৃষ্টি কম হওযায় পানি স্বল্পতায় ঈশ্বরদীতে রোপা ধানের চারা দিতে কিছুটা বিলম্বিত হয়। শ্রাবনে প্রায়ই বৃষ্টি হওয়ায় কৃষকরা দেরী না করে বীজতলা তৈরি ও ধানের আবাদের জন্য জমি প্রস্তুত করে।

ঈদের ব্যস্ততা শেষে ঊপজেলার প্রায় সব এলাকাতেই ইতিমধ্যে ধানের চারা লাগানো শুরু হয়েছে। বৃষ্টিপাত বেশী হওয়ার সুযোগে আবাদি জমিতে বাড়তি পানি সেচ দিতে হচ্ছে না। এই সুযোগ কাজে লাগিয়ে কৃষকরা দ্রুত আমনের চারা রোপন করছে। উপজেলা কৃষি অফিস সুত্রে জানা গেছে, এবছর রোপা আমন মৌসুমে ঈশ্বরদীতে ১৮০ হেক্টর জমিতে বীজতলা প্রস্তুত করার লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। ইতিমধ্যেই বীজতলা তৈরী করা হয়ে গেছে।

উপজেলা কৃষি অফিস বলছে, চলতি আমন মৌসুমে ঈশ্বরদীতে ৪ হাজার ২শত ৬৫ হেক্টর জমিতে আমন ধানের চাষাবাদের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। গত আমন মৌসুমে ধানের ভাল ফলন হয়েছে। কৃষকরা ধানের ন্যায্য মূল্যও পেয়েছে। তাই খুশি হয়ে কৃষকরা সোনালী স্বপ্ন নিয়ে আমন ধানের চাষাবাদ শুরু করে দিয়েছে।

এদিকে আধুনিক প্রযুক্তির মাধ্যমে কৃষক পর্যায়ে উন্নত মানের ধান, গম ও পাট বীজ উৎপাদন সংরক্ষণ ও বিতরণ প্রকল্পের আওতায় উপজেলার প্রতিটি ইউনিয়নে ৫ একর জমিতে ১৫ জন করে কৃষকে সার, বীজ ও কীটনাশক সরবরাহ এবং তদারকি করা হচ্ছে। বৃহস্পতিবার সকালে উপজেলার সাঁড়া ইউনিয়নের গোপালপুর গ্রমের কৃষক আন্টুর জমিতে লাইন করে ধানের চারা লাগানো ও সাবিক ভাবে সহযোগিতা করছেন উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা জাহিদ হাসান হিরোক।

উপজেলা কৃষি অফিসার কৃষিবিদ আব্দুল লতিফ বলেন, এখানকার কৃষকরা ধান আবাদে অনেক অভিজ্ঞ। তাই বৃষ্টির পানি পেয়ে যথারীতিভাবে আমন ধানের চাষাবাদ শুরু করেছে। ইতোমধ্যেই আবাদি জমিতে আমন ধানের চারা রোপন কাজ পুরোদমে শুরু হয়েছে। আমন ধানের বাম্পার ফলনের লক্ষ্য নিয়ে আমরা মাঠ পর্যায়ে কার্যক্রম শুরু করেছি। আমন ধানের চাষাবাদে কৃষকদেরও আগ্রহ বেশি রয়েছে। এতে ব্যয় কম হলেও ধান উৎপাদন ভালো হয়।