দাম -ক্রেতা কোনটাই নেই : বাঁধা কপি নিয়ে বিপাকে চাষি

ডেইলি ভিশন টুয়েন্টিফোর অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশিত: ৫:৩৫ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ১১, ২০২১

দামও নেই, ক্রেতাও নেই। বাঁধা কপি নিয়ে ঈশ্বরদীর চাষিরা চরম বিপাকে পড়েছেন। বিঘার পর বিঘা জমিতে আবাদকৃত বাঁধা কপি মাঠেই নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। মাঠ হতে উঠানো এবং পরিবহন করে হাট-বাজারে নিয়ে বাঁধা কপির দাম ও ক্রেতা কোনটাই মিলছে না। কপি উঠানোর জন্য শ্রমিকের মজুরি এবং পরিবহন খরচ চাষিদের গাঁট হতে দিতে হচ্ছে। হাট-বাজারে ক্রেতা ও দাম না পাওয়ায় গত ১৫ দিন ধরে বাজারে কপি ফেলে দিয়ে শুণ্য হাতে বাড়ি ফিরেছে। একারণে চাষিরা এখন মাঠ থেকে কপি উঠানোই বন্ধ করে দিয়েছে। ফলে মাঠেই নষ্ট হচ্ছে টাকা ও শ্রম ঝড়ানো ফসল বাঁধা কপি। গরুও নাকি এখন বাঁধা কপি খেতে চায় না এই খবরও পাওয়া গেছে।

ঈশ্বরদী  বাজারের খুচরা সবজি বিক্রেতারা জানান, ক্রেতাদের আকৃষ্ট করতে চেষ্টার কমতি নেই। থরে থরে সাজিয়ে রেখেছে বাঁধাকপি। এত কিছুর পরেও মিলছে না ক্রেতা। শুক্রবার বড়ইচারা হটে  গিয়ে দেখা মেলে এমন চিত্র। শুধু শহরের বাজার বা বড়ইচারা হাটেই নয়, অন্য হাট-বাজারগুলোতেও একই চিত্র।

বিক্রেতারা থরে থরে কপির পসরা সাজিয়ে বসে আছে। কিন্তু ক্রেতা মিলছে না। ২-৩ কেজি ওজনের কপি অনেককে ৪ টাকা জোড়া হিসেবে দাম চাইতে দেখা গেছে। যা এখনকার বাজারে ওঠা অন্যান্য সবজির চেয়ে দাম অনেক কম। বাজারে চাহিদার তুলনায় এখন প্রচুর পরিমাণে বিভিন্ন ধরনের শাকসবজি উঠেছে। বাজার করতে আসা ক্রেতাদের অন্যান্য শাকসবজি ক্রয় করতে দেখা গেলেও কপি ক্রয়ে আগ্রহ কম।

১৫ দিন আগেও এক কেজি বাঁধাকপি ১০ টাকা দরে বিক্রি হয়েছে। এখন সেই কপির জোড়া ৪ টাকা দরে বিক্রি করতে চাইলেও ক্রেতা না পাওয়ায় চরম বিপাকে চাষিরা। বাজারের সবজি দোকানদার বিজয় জানান, মৌসুমের শেষের দিকে বাঁধা কপির দাম কমে গেলে কেউ কেউ কিনে নিয়ে গরুকে দিয়ে খাওয়ায়। কিন্তু এখন গরুও নাকি বাঁধা কপিতে মূখ দিচ্ছে না বলে খরিদ্দাররা তাকে জানিয়েছে।

হাটে কপি নিয়ে আসা কৃষক এমদাদ বলেন, যে অবস্থা তাতে কপি বিক্রি হয়নি। বাড়িতে নিয়ে গেলে পচে নষ্ট হয়ে যাবে। এবার কপি চাষ করে চরম বিপাকে পড়েছি। গরুও আর খেতে চাচ্ছে না। এ বছর ২০ শতাংশ জমিতে বাঁধাকপি চাষ করেছি। প্রায় ১০ হাজার টাকা খরচ হয়েছে। এখন কপি তোলার জন্য পাইঠের (শ্রমিকের) মজুরি এবং বাজারে নিয়ে আসার ভ্যান ভাড়াও পাওয়া যাচ্ছে না। আরো অনেকের মতো টাকা খরচ করে আর জমি থেকে কপি উঠাবো না। জমিতেই পচে যাক।