ঈশ্বরদীতে দু’গ্রুপের দফায় দফায় সংঘর্ষ, ছাত্রলীগ সভাপতিসহ ৩ জন আটক

ডেইলি ভিশন টুয়েন্টিফোর অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশিত: ৫:১১ অপরাহ্ণ, মার্চ ২৪, ২০২১

ঈশ্বরদীতে দুই গ্রুপের দফায় দফায় সংঘর্ষে তিনজন আহত হয়েছেন। এসময় দোকানপাট, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও বাড়িতে হামলা এবং ভাংচুর চালানো হয়। উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি রাকিবুল হাসান রনিসহ তিনজনকে আটক করেছে পুলিশ । আহতদের মধ্যে ছাত্রলীগ কর্মী রাতুল (২৬) কে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ও শুভ (২৬) কে ঈশ্বরদী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। আহত উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি রাকিবুল হাসান রনি পুলিশ হেফাজতে রয়েছেন।

বুধবার (২৪ মার্চ) দুপুর সাড়ে ১২টায় ঈশ্বরদী সরকারি কলেজ গেটের সামনে উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি রাকিবুল হাসান রনির ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের অফিসে তালা দেয়ার ঘটনাকে কেন্দ্র করে দু’গ্রুপের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষ শুরু হয়। এসময় ছাত্রলীগ সভাপতি রনি (২৯), ছাত্রলীগ কর্মী রাতুল (২৫) ও শুভ (২৬) ছুরিকাঘাতে আহত হয়।

এর কিছুক্ষণ পর দুপুর ১টার পর ঈশ্বরদী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স চত্বরে আবারো দু’গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। পরে পৌর যুবলীগ সভাপতি আলাউদ্দিন বিপ্লবের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান, সাবেক যুবলীগ নেতা কালাম মোল্লা বাড়ি ও ছাত্রলীগ সভাপতি রনির ব্যক্তিগত কার্যালয়ে হামলার ঘটনা ঘটে।

ঈশ্বরদী থানার অফিসার ইনচার্জ (তদন্ত) অরবিন্দ সরকার ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষের ঘটনা নিশ্চিত করে জানান, ঈশ্বরদী সরকারি কলেজের সামনের একটি দোকানে উপজেলা ছাত্রলীগ সভাপতি রনির ব্যক্তিগত অফিস ছিল। এই দোকানের মালিকানা স্বত্ব নিয়ে মালিক পক্ষের দুটি গ্রুপের মধ্যে দীর্ঘদিন দ্বন্দ চলছিল। রনি এই দ্বন্দ নিরসনের প্রতিশ্রুতি দিলেও দ্বন্দ নিরসন হয়নি। এই অবস্থায় ছাত্রলীগ কর্মী শুভ ছাত্রলীগের আরেকটি গ্রুপের সহযোগিতায় বুধবার সকালে রনির অফিসে তালা দিলে সংঘর্ষের সূত্রপাত হয়।

সংঘর্ষের ঘটনায় সভাপতি রাকিবুল হাসান রনি, পৌর ছাত্রলীগের সাবেক ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক আমজাদ হোসেন অবুজ এবং যুবলীগ কর্মী আকমলকে আটক করা হয়েছে বলে তিনি নিশ্চিত করেছেন।

দুপুরে সংঘর্ষ চলাচলে রাকিবুল হাসান রনি জানায়, আমার অফিসে প্রথমে তালা, পরে ভাংচুর এবং হামলা চালিয়ে আমাকে ছুরিকাঘাত করা হয়েছে।

অপরদিকে পৌর ছাত্রলীগের সাবেক ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক আমজাদ হোসেন অবুজ বলেন, ছাত্রলীগ সভাপতি রনির ছুরিকাঘাতে রাতুল ও শুভ আহত হয়। রনি পরিকল্পিতভাবে রাতুল ও শুভ’র উপরে হামলা চালিয়েছে।

অপরদিকে, পৌর যুবলীগের সভাপতি আলাউদ্দিন বিপ্লব অভিযোগ করেন, তার বাড়ির সামনের দোকান,অফিস ও গাড়ি ভাংচুর এবং যুবলীগ নেতা কালামের বাড়িতে হামলা করা হয়েছে। একই সময়ে ছাত্রলীগ সভাপতি রনির ব্যক্তিগত কার্যালয় ভাংচুর করা হয় বলে তিনি জানান।

এদিকে থানার অফিসার ইনচার্জ আসাদুজ্জামান আসাদ রাতে জানান, আমজাদ হোসেন অবুজ ও আকমলের নামে থানায় অস্ত্র আইনে মামলা দায়ের হয়েছে।

পরিস্থিতি শান্ত রাখতে পাবনা থেকে অতিরিক্ত পুলিশ আনা হয়েছে। ঈশ্বরদী শহরের মোড়ে মোড়ে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।