প্রশাসনিক কার্যক্রমে স্বচ্ছতা নিশ্চিতে ব্লকচেইন কার্যকর প্রযুক্তি: পলক


তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বলেছেন আর্থিক, প্রশাসনিক কার্যক্রমে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত করার নির্ভরযোগ্য প্রযুক্তি ‘ব্লকচেইন’। এ প্রযুক্তি গ্রহণ না করলে আমরা পিছিয়ে পড়ব। ফ্রন্টিয়ার প্রযুক্তি ব্যবহারে আমরা পিছিয়ে থাকতে চাই না। কৃষি, শিক্ষা, স্বাস্থ্যসহ প্রতিটি ক্ষেত্রে ফ্রন্টিয়ার টেকনোলজি ব্যবহার করে অর্থনৈতিক উন্নয়নকে এগিয়ে নিতে হবে।

প্রতিমন্ত্রী আজ রবিবার ( ৩০ মে) বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিল (বিসিসি) অডিটরিয়ামে আইসিটি বিভাগ ও বাংলাদেশ ব্লকচেইন অলিম্পিয়াডের উদ্যোগে ‘ব্লকচেইন অলিম্পিয়াড বাংলাদেশ- ২০২১’ প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কারের অর্থ প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, আইটি খাত থেকে আগামী ২০২৫ সালের মধ্যে রপ্তানি আয় ৫ বিলিয়ন ডলার লক্ষ্যমাত্রা নিয়ে আমরা কাজ করছি। দেশে বর্তমানে সাড়ে ছয় লক্ষ আইটি ফ্রিলান্সার রয়েছে। তারা প্রায় ৫০০ মিলিয়ন ডলারের বেশী আয় করছে। হার্ডওয়্যার ও সফটওয়্যার সবমিলিয়ে দক্ষ জনশক্তির মাধ্যমে ১ বিলিয়ন ডলার আয় হচ্ছে।

দ্রুত পরিবর্তনশীল পৃথিবীতে শিক্ষার কোন শেষ নেই উল্লেখ করে প্রতিমন্ত্রী বলেন, চতুর্থ শিল্প বিপ্লব মোকাবিলায় ডিজরাপটিভ টেকনোলজি বিষয়ে হাতে কলমে শিক্ষা দিতে দেশে ৩০০টি স্কুল অব ফিউচার প্রতিষ্ঠা করা হচ্ছে। ২০৪১ সালে উন্নত বাংলাদেশে সেরা প্রযুক্তিবিদ তৈরি করতে শেখ হাসিনা ইন্সটিটিউট অব ফ্রন্টিয়ার টেকনোলজি প্রতিষ্ঠা করা হচ্ছে। তরুণদের কর্মসংস্থান নিশ্চিত করার লক্ষ্যে আর্টিফিশিয়াল ইন্টিলিজেন্স, বিগডাটা, রোবটিকস্‌, ব্লকচেইন, অগমেন্টেড রিয়েলিটি ও মাইক্রোপ্রসেসর ডিজাইন প্রযুক্তিতে দক্ষ করে তুলতে ৬৪টি জেলায় শেখ কামাল আইটি ট্রেনিং এন্ড ইনকিউবেশন সেন্টার প্রতিষ্ঠা করা হচ্ছে। সারাদেশে ৮ হাজার শেখ রাসেল ডিজিটাল ল্যাব প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে।

প্রতিমন্ত্রীর মতে, বিভিন্ন অফিস পেপারলেস হয়েছে। গত ৬ বছরে ১ কোটি ৮১ লক্ষ ফাইল অনলাইনে নিষ্পন্ন হয়েছে। ডিজিটাল বাংলাদেশ লালফিতার দূরত্বকে নিশ্চিহ্ন করে দিয়েছে। ই-ফাইলকে ডিজিটাল ফাইলে এবং ই-নথিকে ডিজিটাল নথিতে রূপান্তরের কাজ চলছে। গুরুত্বপূর্ণ নথিতে ব্লকচেইন ব্যবহার করা হবে।


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *