যুক্তরাষ্ট্র হতে আধুনিক রেল ইঞ্জিন আমদানি

চালকরা এসি কামরায় বসে প্রথম ট্রেন চালাচ্ছেন

ডেইলি ভিশন টুয়েন্টিফোর অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশিত: ১০:৫২ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ৩, ২০২২

পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়েতে যুক্ত হয়েছে যুক্তরাষ্ট্র হতে আমদানিকৃত আধুনিকমানের শীতাতাপ নিয়ন্ত্রিত রেল ইঞ্জিন। এবারে প্রথম ট্রেন চালকরা শীতাতাপ নিয়ন্ত্রিত (এসি) কামরায় বসে ট্রেন চালাচ্ছেন। এযাবত শুধুমাত্র শীতাতাপ নিয়ন্ত্রিত (এসি) বগি নিয়ে নিজেরা গড়মে কষ্ট করে যাত্রীদের সেবা দিয়ে নির্ধারিত গন্তব্যে তারা ট্রেন চালিয়েছেন। এখন চালকরা নিজেরার এসি কামরায় বসে স্বস্তিতে ট্রেন চালাচ্ছেন। গত ৩ দিন ধরে যুক্তরাষ্ট্র থেকে আমদানিকৃত শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত চারটি ইঞ্জিন রাজশাহী ও ঈশ্বরদী রুটে পরীক্ষামূলক চালানো হচ্ছে।

Dailyvision24.com

জানা গেছে, যুক্তরাষ্ট্র থেকে আমদানি করা ৪০ টি ইঞ্জিন পশ্চিমাঞ্চল রেলে যুক্ত হচ্ছে। এর মধ্যে ৫ টি ঈশ্বরদী লোকশেডে এসে পৌঁছেছে। গত বৃহস্পতিবার থেকে শুধূ কপোতাক্ষ এক্সপ্রেস ট্রেনের সঙ্গে যুক্ত করে চারটি ইঞ্জিন পরীক্ষামূলকভাবে চালানো হচ্ছে। কারণ দিনের বেলায় ঈশ্বরদী ও রাজশাহীর মধ্যে চলাচলকারী একটি ট্রেনই রয়েছে। ইঞ্জিনগুলো চালানোর সময় বাইরের বিশেষজ্ঞ সাথে রয়েছেন। চালানোর সময় যেসব ক্রুটি পাওয়া যাবে, পরে সেগুলো ঠিক করে আনুষ্ঠানিকভাবে এগুলো চালানো হবে।

যুক্তরাষ্ট্র হতে আমদানি করা ইঞ্জিন প্রথম চালিয়েছেন লোকোমোটিভ মাস্টার তৌহিদুল ইসলাম। তৌহিদুল ইসলাম রবিবার বলেন, এই ইঞ্জিনের সর্বোচ্চ গতিসীমা ঘণ্টায় ১৪০ কিলোমিটার। কিন্তু আপাতত সর্বোচ্চ গতি ঘণ্টায় ১২০ কিলোমিটার বেঁধে দেওয়া হয়েছে। ৯৩ কিলোমিটার গতিতে তিনি চালিয়েছেন জানিয়ে আরো বলেন, ইঞ্জিনের আগে-পিছে ক্যামেরা ও জিপিএসও লাগানো রয়েছে। এতে ট্রেনের অবস্থান অন্ধকারেও বোঝা যাবে। গড়মে লোহা গড়ম হয়ে যায়। তখন গড়ম লাগে বেশি। আবার শীতে লোহা ঠান্ডাও হয় বেশি। তখন ঠান্ডা লাগে। সবসময় আমাদের শীত-গড়মের কষ্টে ভুগতে হয়। যাত্রীরা এসিতে যেতে পারলেও চালকদের কষ্ট সহ্য করতে হয়েছে। এই প্রথম চালকদের জন্য এসি কামরার ব্যবস্থা করা হয়েছে। এখন স্বস্তিতে চালকরা ট্রেন চালাতে পারবে।

পাকশী রেলওয়ে বিভাগীয় সহকারী যান্ত্রিক প্রকৌশলী মিজানুর রহমান জোয়াদ্দার বলেন, যুক্তরাষ্ট্র থেকে আমদানি করা লোকামোটিভ দ্রুত গতি তুলতে সক্ষম। এটি রক্ষাণাবেক্ষণের সময় ও ব্যয় কম হবে। লোকামোটিভ ইঞ্জিন শীতাতাপ নিয়ন্ত্রিত হওয়ায় চালকরা স্বস্তিতে ট্রেন চালাতে পারবেন। ইতোমধ্যে ৫টি লোকামোটিভ ইঞ্জিন ঈশ্বরদী লোকোসেডে এসে পৌঁছেছে। ৪টির পরীামূলক চলাচল শুরু হয়েছে। আরো কয়েকটি লোকোমোটিভ দ্রুতই পাকশী বিভাগে সংযুক্ত হবে, সেগুলো পরীক্ষামূলক চালানোর পর দূরের রুটে চালানো হবে।

পাকশী রেলওয়ে বিভাগীয় সহকারী পরিবহণ কর্মকর্তা সাজেদুল ইসলাম বাবু জানান, পশ্চিমাঞ্চল রেলে নতুন লোকোমোটিভ (সর্বোচ্চ গতির ইঞ্জিন) যুক্ত হওয়ায় যাত্রীবাহী ট্রেন চলাচলের পাশাপাশি পণ্যবাহী ট্রেন চলাচলও বাড়বে। এতে সরকারের রাজস্ব আয় বেড়ে যাবে।

পশ্চিমাঞ্চলের রেলওয়ের মহাব্যবস্থাপক (জিএম) অসীম কুমার তালুকদার বলেন, দেশে ৩,২০০ হর্সপাওয়ারের ইঞ্জিন ছিল। এবার ৩,২০০ হর্সপাওয়ারের অত্যাধুনিক ৪০টি ইঞ্জিন পর্যায়ক্রমে পশ্চিম রেলে যুক্ত হবে। ইঞ্জিনে এসি সুবিধা থাকায় চালকরা স্বস্তিতে ট্রেন চালাতে পারবেন।