পুলিশের নজরদারী সত্বেও কঠোর লকডাউনের ৫ম দিন পাবনায় জনসমাগম ছিলো মাত্রাতিরিক্ত

ডেইলি ভিশন টুয়েন্টিফোর অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশিত: ১২:০৮ পূর্বাহ্ণ, এপ্রিল ১৯, ২০২১

রফিকুল ইসলাম ফরিদ
পুলিশের কঠোর নজরদারী ও রাস্তায় বিভিন্ন সড়কে বাঁশ দিয়ে রাস্তা ব্লক করে রাখা সত্বেও কঠোর লকডাউনের ৫ম দিনে রোববার পাবনা শহরে সকাল থেকে সারাদিনই যানবাহন চলেছে মাত্রাতিরিক্ত ও জনগণের ঢলও নেমেছিলো শহরের বাজার ও মার্কেটগুলোতে। রিক্সা, অটো, সিএনজিতে যাত্রীরা ঈশ^রদী, আটঘরিয়া, টেবুনিয়া, দাশুড়িয়া, মুলাডুলি, মালিগাছা, সুজানগর, আতাইকুলা, মাধপুর, কাশিনাথপুর, নগরবাড়ী, পাকশী, কুষ্টিয়া, যাতায়াত করেছেন। এসব পরিবহনে স্বাস্থ্যবিধি না মেনে গাদাগাদি করে লোকজন চলাচল করেছে। এদিকে গতকাল ১৮ এপ্রিল রোববার করোনায় আক্রান্ত হয়ে বাংলাদেশে মারা গেছেন ১০২ জন। গত শনিবার ১০১ ও শুক্রবার ১০১ জনের মৃত্যু হয়।
এদিকে করোনা নিয়ন্ত্রণে সরকার গঠিত জাতীয় কারিগরী পরামর্শক কমিটি টানা দুই সপ্তাহের লকডাউন দেয়ার সুপারিশ করেছে। লকডাউন আগামী ২২ এপ্রিল থেকে ২৮ এপ্রিল পর্যন্ত চলতে পারে। চলমান ৮ দিনের কঠোর লকডাউনের মেয়াদ শেষ হবে ২১ এপ্রিল রাত ১২ টায়। পাবনার জনগণ ঘরে বসে থাকতে নারাজ। তাই নারী-পুরুষ ও শিশু-কিশোররা শহরমুখী হচ্ছে রোজার বাজার করতে কিংবা আত্মীয়-স্বজন ও প্রিয়জনদের সঙ্গে দেখা করার জন্য ছুটছে দূর-দূরান্তে অটো, সিএনজি ও চার্জারভ্যানে করে। করোনা নিয়ে পানার জনগণের তেমন সচেতনতা না থাকলেও পাবনার জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারের নির্দেশে জেলা প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসন লকডাউন সফল করতে নজরদারী বৃদ্ধি করেছেন। ফলে পাবনায় করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা রোগী নেই বললেই চলে। তবে পাবনা জেলার গ্রামাঞ্চলে বিশেষ করে চরঘোষপুর, দ্বীপচর, মালঞ্চী, মালিগাছার জনগণ লকডাউন কেউ মানছেনা। চা দোকানগুলো খোলা রেখে টিভি চালানো হচ্ছে আর সরকারী নির্দেশনাকে উপক্ষো করে চা এর দোকানে গাদাগাদী করে বসে চা খোররা টিভি দেখছে গভীর রাত পর্যন্ত। এদিকে রাতের বেলাও শহরে সিএনজি, অটো ও মটর সাইকেল চলেছে হরদম। রাতে কোন পুলিশের দেখা মেলেনি। দিনের বেলা লাইসেন্স ও বাতিবিহীন ইট, বালু ও মাটিবাহী ট্রলি, ভুটভুটি, কুত্তাগাড়ী ও ড্রামট্রাক চলেছে ব্যাপক হারে।