খুঁটি পুঁতে ঈশ্বরদী পৌর শ্মশানের রাস্তা বন্ধ করে দেয়া হলো

ডেইলি ভিশন টুয়েন্টিফোর অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশিত: ৬:৪৫ অপরাহ্ণ, মে ২৬, ২০২১

ঈশ্বরদী সংবাদদাতাঃ
লম্বা খুঁটি পুঁতে ঈশ্বরদী পৌর শ্মশানে যাতায়াতের রাস্তা বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। রেলওয়ের পাকশী বিভাগীয় প্রকৌশল বিভাগ-২ এর কার্যালয় হতে বুধবার (২৬ মে) পুলিশ ও বিপুল সংখ্যক রেল কর্মী নিয়ে বৃটিশ আমলের এই রাস্তাটি বন্ধ করে দেয়ার জন্য দুই স্থানে একইভাবে খুঁটি পুঁতেছে। যাতে কোনভাবেই ওই রাস্তায় চলাচল করা না যায়। ঈশ্বরদীর হিন্দু সম্প্রদায় এ ঘটনাটিকে হিংসাত্মক বলে জানিয়েছেন। অবিলম্বে খুঁটি তোলা না হলে হিন্দু সম্প্রদায়সহ এলাকাবাসী এর বিরুদ্ধে রাস্তায় নামবে বলে জানা গেছে।
হিন্দু সম্প্রদায়ের এই পৌর শ্মশানে পৌরবাসী ছাড়াও কয়েকটি ইউনিয়নবাসী মৃতদেহ দাহ করে। শ্মশানের পশ্চিমে পৌর এলাকার ৩ নং ওয়ার্ডসহ পাকশী ইউনিয়নের বেশ কয়েকটি গ্রামবাসীর চলাচলেও এই রাস্তাটি দীর্ঘদিন ব্যবহার হয়ে আসছে। শ্মশানে প্রতিবছর শিব চর্তুদ্দশীতে দুই দিন ব্যাপী অনুষ্ঠিত বাংলাদেশের একমাত্র ‘হর-মুন্ডমালিনী’ উৎসবে হাজার হাজার হিন্দু সম্প্রদায়ের সমাগম ঘটে। এসব বিবেচনায় নিয়ে কাঁচা এই রাস্তাটি পাকাকরণের জন্য পৌরসভার পক্ষ হতে টেন্ডার করে কাজও শুরু হয়। কিন্তু রেলের পাকশী বিভাগীয় প্রকৌশল বিভাগ-২ এর বর্তমান কার্যালয় রাস্তা পাকা করার কাজও এরআগে বন্ধ করে দেয়। সর্বশেষ বুধবার পাকাপাকিভাবে এই রাস্তা বন্ধ করে দেয়ায় হিন্দু সম্প্রদায়সহ ওই এলাকার সাধারণ মানুষের মধ্যে তীব্র ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।
বিভাগীয় প্রকৌশলী-২ আব্দুর রহিম জানান, রেল লাইনের পাশে সিগনালের কেবল লাইন রক্ষার জন্য এই ব্যবস্থা করা হয়েছে।
এলাকায় বসবাসকারী ৩ নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম সিরাজ বৃটিশ আমলের এই রাস্তা বন্ধ করে দেয়ার ঘটনা হিংসাত্মক জানিয়ে বলেন, শুধু শ্মশানই নয় এলাকার মানুষের আপদে-বিপদে রোগী নেয়ার জন্য এ্যাম্বুলেন্সেরও জায়গা রাখা হয়নি।
শ্মশান পরিচালনা কমিটির সাধারণ সম্পাদক স্বপন কুন্ডু বলেন, যেভাবে উঁচু করে খুঁটি পোঁতা হয়েছে তাতে লাশ কাঁধে করে নেয়ারও উপায় নেই। এখানে হিন্দু সম্প্রদায়ের মরদেহ পিকআপ, এ্যাম্বুলেন্স ও ভ্যানে করে নিয়ে আসা হয়। কেবল লাইন যেখানে রয়েছে, সেখান থেকে পশ্চিম দিকে অনেক দূরে অন্তত: পিকআপ-এ্যাম্বুলেন্স যাওয়ার জয়াগা রেখে খুঁটি পোঁতা হলে কেবলের ক্ষতি হওয়ার সম্ভাবনা নেই।
শ্মশান কমিটির সভাপতি অধ্যাপক উদয় নাথ লাহিড়ী বলেন, বাংলাদেশে রেল লাইনের ধার দিয়ে অনেক রাস্তা রয়েছে। সেসব রাস্তা বন্ধ না করে ঈশ্বরদীর শ্মশানের এই রাস্তা বন্ধ করার ঘটনা উদ্দেশ্য প্রণোদিত। এই ঈশ্বরদীতেই রেলের কোয়ার্টারসহ বিপুল জায়গা-জমি বেদখল হয়ে অবৈধভাবে ভোগ-দখল করলেও সেগুলো উদ্ধারে রেলের কোন উদ্যোগ নেই। আর শান্তিপ্রিয় হিন্দু সম্প্রদায়ের শ্মশানে যাওয়া বন্ধ করতে পাকশী রেল মেতে উঠেছে। অবিলম্বে খুঁটি তোলা না হলে হিন্দু সম্প্রদায়সহ এলাকাবাসী এর বিরুদ্ধে রাস্তায় নামতে বাধ্য হবে বলে তিনি জানিয়েছেন।
ঈশ্বরদী মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার গোলাম মোস্তফা চান্না মন্ডল শ্মশানের রাস্তা বন্ধ করে দোয় তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, ধর্মীয় সেন্টিমেন্টে আঘাত করার আগে শ্মশান কমিটির লোকজনের সাথে কথা বলা উচিত ছিল।
ঈশ্বরদী পৌর মেয়র ইসাহক আলী মালিথা শ্মশানের জন্য পৌরসভার পক্ষ হতে রাস্তা পাকা করার টেন্ডারের কাজ বন্ধের ঘটনা নিশ্চিত করে বলেন, এই বিষযটি মানবিক দৃষ্টিকোণ থেকে দেখা উচিত। শুধু শ্মশানই নয়, আমার ৩ নং ওয়ার্ডের অনেক মানুষ ওই রাস্তা দিয়ে চলাচল করে।
পাবনা-৪ আসনের সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ¦ নূরুজ্জামান বিশ্বাস বলেন, রাস্তা বন্ধ করে দেয়ার ঘটনা শোনার সাথে সাথে আমি পাকশী বিভাগীয় রেলওয়ে ম্যানেজার (ডিআরএম) এর সাথে কথা বলেছি। লাশ নিয়ে শ্মশানে যাওয়া এবং এলাকার মানুষের বিপদে এ্যাম্বুলেন্স যাওয়ার মতো রাস্তা রাখার প্রয়োজনীতার কথাও জানিয়েছি। ডিআরএম এখন ষ্টেশনে নেই। শনিবারে তিনি সরেজমিনে পরিদর্শন করে ব্যবস্থা গ্রহন করবেন বলে আমাকে জানিয়েছেন। ##